আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর ভবিষ্যৎ

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর ভবিষ্যৎ

  • by Pencilbox
  • 19/08/2021 - 06:22 PM
  • 0 Comments

নিকট ভবিষ্যতে বিশ্ব হবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সময়।


 

 টেসলা বর্তমান সময়ের তৈরি করা অন্যতম সেরা গাড়ি। এর সেরা হওয়ার অনেক গুলো কারণ রয়েছে। এই গাড়ির ওভার-দ্য-এয়ার আপডেটগুলোর জন্যই কেবল স্মার্ট হয়ে উঠছে। আমাদের জানতে হবে,  কীভাবে তারা এই কাজগুলো করছে?

 

মূলত তাদের ভবিষ্যদ্বাণীপূর্ণ ক্ষমতা, স্ব-ড্রাইভিং এবং নিখুঁত প্রযুক্তিগত দক্ষতার ব্যাবহার করাই হচ্ছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা Artificial Intelligence. তারা তাদের গাড়িগুলোতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যাবহার করেছে । যা বর্তমান সময় থেকে তাদের একধাপ এগিয়ে যেতে সাহায্য করেছে। 

 

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) কি ?

পঞ্চাশ দশকের দিকে, মিনস্কি এবং ম্যাকার্থি, এআই কে জনসম্মুখে এনেছিলেন। তারা বলেছিলেন, ভবিষ্যতে মেশিন দ্বারা সম্পাদিত যে কোনও কাজে মানুষের বুদ্ধিমত্তার প্রয়োজন হতে পারে, তা ই হবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। 

আধুনিক সময়ের সংজ্ঞাতে তা আর ও নির্দিষ্ট করে দিয়েছে। ফ্রাঙ্কোইস কোলেটের মতে বুদ্ধিমত্তা হচ্ছে নতুন পরিবেশের সাথে মানিয়ে নেওয়ার একটি সিস্টেমের যা পরিবেশ অনুযায়ী নিজেকে উন্নতি করার ক্ষমতার রাখে এবং প্রাপ্ত ডেটাকে সাধারণীকরণ  করে ঘটনাগুলির সাথে অপরিচিতদের জন্য  প্রয়োগ করে থাকে ।

 

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর ধারণা

প্রতিদিন আমরা বিভিন্ন ধরনের প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে থাকি। কখনো কি ভেবে দেখেছি যে, একটি সাধারণ প্রশ্ন ইতিহাস পরিবর্তন করে দিতে পারে? হ্যাঁ সেটাই ঘটেছিল, অ্যালান টুরিং নামের একজন গণিতবিদ এর সাথে । তার একটি প্রশ্ন পরিবর্তন করে দিয়েছে ইতিহাস , “মেশিন কি চিন্তা করতে পারে?” 

এর পরে গণিতবিদরা এই বিষয় নিয়ে কথা বলে, যা পরবর্তীতে কম্পিউটার বিজ্ঞানের মৌলিক লক্ষ্য এবং দৃষ্টিভঙ্গি প্রতিষ্ঠা করে। কম্পিউটার সায়েন্সের একটি শাখা হচ্ছে এআই যা অ্যালান টার্নিংয়ের প্রশ্নের ইতিবাচক উত্তর দেয়। এটিই এআই এর জন্য একটি বিশাল বিস্তার।

 

তবে এআই এর বিস্তৃতির লক্ষ্যে বেশ কয়েকটি প্রশ্ন এবং বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। 


আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর ধরণ

 

সাধারণত আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স দুই ভাগে বিভক্ত । যেমনঃ

সংকীর্ণ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (Narrow AI)

Narrow AI-কে দুর্বল এআই ও বলা যেতে পারে। ন্যারো এআই একটি সীমিত প্রেক্ষাপটে কাজ করে থাকে এবং এটি মানুষের বুদ্ধিমত্তার অনুকরণে তৈরি । এটি কোন একক কাজ খুব ভালভাবে করে থাকে এবং এই মেশিনগুলি বুদ্ধিমান হয়ে থাকে। এই মেশিন গুলো মানুষের বুদ্ধিমত্তার চেয়ে আরও সীমাবদ্ধ ।

অ্যাপেল এর সিরির মতো ভার্চুয়াল সহকারী, স্ব-চালিত গাড়ি, প্লেন, গুগল সার্চ, ছবি চিহ্নিত করার সফ্টওয়্যার, আইবিএম এর ওয়াটসন ইত্যাদি তৈরিতে এই ন্যারো এআই ব্যবহার হয়েছে।

 

সাধারণ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (General AI)

General AI-কে শক্তিশালী এআইও বলা হয়ে থাকে । এই বুদ্ধিমত্তার মেশিনগুলো মানুষের মতোই বুদ্ধিমান হয়ে থাকে। এটি যে কোন সমস্যা সমাধানের জন্য সেই বুদ্ধি প্রয়োগ করবে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, বাস্তবে এর কোন অস্তিত্ব নেই। আমরা এই ধরনের এআই দেখতে পাই কেবল মাত্র সিনেমার মধ্যে ।

এআই বিশেষজ্ঞরা বাস্তবায়ন করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করছেন। এআই গবেষকদের একটি দল বলেছে, ২০৪০-২০৫০ এর মধ্যে এটি ৫০% বিকাশ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে অথবা ২০৭৫ সালের মধ্যে ৯০% বিকাশের সম্ভাবনা রয়েছে।

 

নিকট ভবিষ্যতে বিশ্ব হবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সময়। মানুষ আরও আরামপ্রিয় হয়ে উঠবে। বিজ্ঞানীরা ধারনা করছেন, নিকট ভবিষ্যতে সব কিছুই যান্ত্রিক হয়ে যাবে । মানুষের প্রয়োজন কমে আসবে, সকল কাজ যন্ত্র দিয়েই করা হবে । ধারণা করা হচ্ছে তা মানব সমাজের জন্য হুমকি স্বরূপ।

২০২০ সালের ৩রা জানুয়ারি বাগদাদে বিমান হামলায় ইরানের সেনাপ্রধান মারা যায় । আমেরিকা চালক বিহীন বিমান দিয়ে সেই হামলা পরিচালনা করেছিল। তারা এআই ব্যাবহার করে সেনাপ্রধানের উপর হামলা করে । 

 

আমার মতে প্রযুক্তি খারাপ না ,আমরা প্রযুক্তিকে যেভাবে ব্যাবহার করবো প্রযুক্তি ও ঠিক তেমনই ফল দিবে । ভালো খারাপ আমাদের হাতে , আর এই ভালো খারাপ নিয়েই এগিয়ে যেতে হবে। বাকিটা ভবিষ্যৎই বলে দিবে । 

 

All Comments


Post Your Comment

Please login to post a comment!