ব্লকচেইন প্রযুক্তি (Blockchain Technology)

ব্লকচেইন প্রযুক্তি (Blockchain Technology)

  • by KH. PAVEL
  • 28/03/2020 - 05:10 PM
  • 0 Comments

ব্লকচেইন বর্তমান সময়ের একটি অন্যতম শ্রেষ্ঠ উদ্ভাবন, যা অনস্বীকার্যভাবে আমাদের পৃথিবীকে বদলে দিবে। কিন্তু নতুন এই উদ্ভাবন সম্পর্কে বর্তমানে প্রত্যেকের মনের মূল প্রশ্নটি হ'ল: ব্লকচেইন আসলে কী?


ব্লকচেইন প্রযুক্তি কি ইন্টারনেটের নতুন নাম?

 

ব্লকচেইন প্রযুক্তি একটি নতুন ধরণের ইন্টারনেটের মেরুদণ্ড তৈরি করেছে, যা ব্যাবহার করা যাবে কিন্তু কপি করা যাবে না (ডিজিটাল তথ্য বিতরণ করার অনুমতির সাপেক্ষে)।

 

প্রধানত ডিজিটাল মুদ্রার (বিটকয়েন ব্লকচেইন) জন্য তৈরি এই প্রযুক্তি এখন অন্যান্য সম্ভাব্য অনেক জায়গায় ব্যাবহারের চিন্তা করা হচ্ছে । এই ব্লগটিতে, আমি ব্লকচেইন প্রযুক্তি কী এবং এর বৈশিষ্ট্যগুলি কী তা ব্যাখ্যা করতে যাচ্ছি। যদিও বেশ কিছু টেকনিক্যাল টার্ম ব্যাবহার করতে হয়েছে, আমি আশা করি এই ব্লগটি সবার জন্য সহজ এবং উপভোগ্য হবে।

 

ব্লকচেইন প্রযুক্তির ব্যাখ্যান

 

সহজ অর্থে ব্লকচেইন হলো, একটি নির্দিষ্ট টাইমস্ট্যাম্প এর অপরিবর্তনীয় ডেটাসমূহের রেকর্ড যা ক্লাস্টারের মাধ্যমে ম্যানেজ করা হয়। এবং মনে রাখার বিষয় হলো যে, এটি কোনও একক মালিকানাধীন নয়। ক্রিপ্টোগ্রাফিক নীতিগুলি (অর্থাৎঃ চেইন) ব্যবহারের মাধ্যমে এই ডেটা ব্লক গুলি একে অপরের সাথে আবদ্ধ এবং সুরক্ষিত। ব্লকচেইন নেটওয়ার্কের কোনও কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ নেই - এটি অনেকটা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার মতো। যেহেতু এটি একটি শেয়ারড এবং অপরিবর্তনীয় লেজার, তাই এতে থাকা তথ্যসমূহ প্রত্যেকের দেখার জন্যই উন্মুক্ত। অতএব, ব্লকচেইনে যা কিছু নির্মিত হচ্ছে তা স্বাভাবিকভাবেই অত্যান্ত স্বচ্ছ এবং এর সাথে জড়িত প্রত্যেকেই এর জন্য দায়বদ্ধ।

 

ব্লকচেইন আসলে কী?

 

ব্লকচেইনে লেনদেনের কোন খরচ নেই। ইনফ্রাস্ট্রাকচার এর একটি খরচ আছে অবশ্যই তবে ট্রানজেকশনের জন্য কোন খরচ নেই। ব্লকচেইন একটি সহজ তবে বুদ্ধিকৌশলময় উপায় যার মাধ্যমে সম্পূর্ণ অটোমেটেড এবং নিরাপদ উপায়ে A থেকে B তে ডেটা প্রেরণ করা যায়।

 

ব্লকচেইনে লেনদেনের জন্য একটি পক্ষ, একটি ডেটা ব্লক তৈরি করে এর প্রক্রিয়া শুরু করে। এই ব্লকটি হাজার হাজার, সম্ভবত কয়েকশ মিলিয়ন কম্পিউটার দ্বারা নেটওয়ার্কের ভিতর ডিস্ট্রিবিউট করে রাখা হয় এবং তা যাচাই করা হয়। যাচাইকৃত এই ব্লকটি একটি চেইনের ভিতর যোগ করা হয় এবং নেটওয়ার্কে সংরক্ষণ করা হয়; যা শুধু একক বা ইউনিক রেকর্ডই তৈরি করে না এর সাথে সাথে নেটওয়ার্কে একটি ইউনিক হিস্টোরিও তৈরি করে। যার ফোলে একটি রেকর্ড কে মিথ্যা বলা বা ভুয়া বলার অর্থ লক্ষ্যাধিক ইন্সট্যান্সের পুরো চেইনকে মিথ্যা বলা। যা কার্যত অসম্ভব। বিটকয়েন আর্থিক লেনদেনের জন্য এই ব্লকচেইন মডেলটি ব্যবহার করে থাকে তবে এই মডেলটি অন্য অনেক কাজেই ব্যাবহার করা যায়।

 

ব্লকচেইন প্রযুক্তি কী?

 

উদাহরণ হিসেবে বাংলাদেশ রেইলওয়ের অনলাইন টিকেটিং এর কথা চিন্তা করা যেতে পারে। এখানে আমরা মোবাইল অথবা ওয়েব এপের মাধ্যমে টিকেট কিনে থাকি। যেখানে পেমেন্ট গেটওয়ে প্রতি ট্রানজেকশনে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা অতিরিক্ত চার্জ করে। ব্লকচেইন এখানে রেলওয়ের এই পেমেন্ট গেটওয়ের প্রসেসিং ফি থেকে আমাদের বাঁচানোর সাথে সাথে টিকিটের পুরো প্রক্রিয়াটিই ব্লকচেইনের ভিতর স্থানান্তর করতে পারে। এখানে লেনদেনের দুটি পক্ষ - রেলওয়ে সংস্থা এবং যাত্রী। টিকিট একটি ডেটা ব্লক, যা টিকিট ব্লকচেইনে যুক্ত হবে। আর্থিক লেনদেনের রেকর্ড যেমন ব্লকচেইনে ইউনিক, স্বতন্ত্রভাবে যাচাইযোগ্য এবং অস্বীকারযোগ্য রেকর্ড (বিটকয়েনের মতো) হিসেবে থাকে, তেমনি আমাদের এই টিকিটও থাকতে পারে। সবচেয়ে মজার বিষয় সর্বশেষ টিকিট ব্লকচেইনে, যে কোনও ট্রেনের রুট অথবা পুরো ট্রেন নেটওয়ার্কের কোথায় কোন টিকিট বিক্রি হয়েছে বা কোন ট্রেনের জার্নি কখন কোথায় হয়েছে, তার সমস্ত লেনদেনের রেকর্ড থাকবে।

 

তবে এখানের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল যে এই ট্রানজেকশনটি ফ্রি! ব্লকচেইন কেবল অর্থ স্থানান্তর ও সঞ্চয়-ই করতে পারে তা না, বরং এটি এরকম সব ধরনের সিস্টেম এবং ব্যবসায়িক মডেলগুলিকে বদলে দিতে পারে যেখানে লেনদেনের জন্য একটি ফি চার্জ করা হয়, অথবা দুটি পক্ষের মধ্যে অন্য কোনও লেনদেন হয়।

 

চলমান ...

All Comments


Post Your Comment

Please login to post a comment!